নিউজ ডেস্ক: নিজে ইনফার্টাইল তাই সন্তানের আকাঙ্খায় ফন্দি এঁটে বন্ধুকে দায়িত্ব দিয়েছিলেন নিজের স্ত্রীকে গর্ভবতী করার। বন্ধুও রাজি হয়ে যায়!এক আধবার নয় মোট ৭৭ বার চেষ্টা করেও তিনি অবশ্য বন্ধুর স্ত্রীকে গর্ভবতী করতে পারেননি। এতেই বিগড়ে যায় পরিস্থিতি এবং বন্ধুর বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা দায়ের করেছেন তানজানিয়ার এক পুলিশকর্মী দারিয়াস মাকামবাকো।আফ্রিকান এই নাগরিকের সমস্যা সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার পর হইচই পড়ে গিয়েছে নেটদুনিয়ায় ।
৫০ বছরের পুলিশকর্মী বন্ধ্যাত্ব বা ইনফার্টিলিটির সমস্যায় ভুগছিলেন। চিকিৎসকরা জানিয়ে দিয়েছিলেন যে তাঁর পক্ষে সন্তানের জন্ম দেওয়া সম্ভব নয়। ৬ বছরের বিয়ের পরেও সন্তান না হওয়ায় অবসাদগ্রস্ত ছিলেন তাঁর ৪৫ বছরের স্ত্রীও। এই সময়ই এক অদ্ভুত এই ফন্দি আঁটেন দারিয়াস। তাঁর ৫২ বছরের বন্ধু ইভান্স মাস্তানোর দ্বারস্থ হন দারিয়াস, তাঁর স্ত্রীকে গর্ভবতী করে দেওয়ার অনুরোধ নিয়ে। প্রথমে অবশ্য রাজি না হলেও অনেক অনুরোধের পর ২০ লাখ তানজিনিয়ান সিলিং অর্থাৎ ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ৬০ হাজার টাকার বিনিময়ে রাজি হন ইভান্স। শর্ত ছিলো ১০ মাসে সপ্তাহে ৩ বার সেক্স করতে হবে তাঁর স্ত্রী র সঙ্গে। এক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, মোট ৭৭ বার কসরত করেন ইভান্স। তবে ফল সেই শুন্য । এরপর চিকিৎসকের পরামর্শ নিলে, চিকিৎসকরা জানান, ইভান্সও বন্ধ্যা । যদিও এই দাবি প্রথমে অস্বীকার করেন ইভান্স। কারণ, তাঁর নিজের দুই সন্তানও রয়েছে। পরে অনেক অশান্তির পরে ইভান্সের স্ত্রী স্বীকার করতে বাধ্য হন, ওই সন্তানেরা ইভান্সের ঔরসজাত নয়,তাঁরা তাঁর ভাই এডওয়ার্ডের সন্তান ।
দারিয়াস মাকামবাকো এরপর টাকা ফেরত চেয়ে মামলা করেন বন্ধু ইভান্সের নামে। তবে ইভান্সের দাবি, ‘আমি তো কোনও গ্যারান্টি দিইনি। তাহলে টাকা ফেরত কেন দেব?’ তবে নিজে বন্ধ্যা সে কথা জানার পর সন্তান, স্ত্রী এবং নিজের ভাই কে নিয়ে নিজেই ফাঁপরে পড়েছেন ইভান্স!
চূড়ান্ত এই পারিবারিক সমস্যার সমাধান দারিয়াস মাকামবাকো কিভাবে করবেন তা হয়তো সময়ই বলবে। তবে এহেন খবরে আপাতত হাঁসিতে তোলপার হচ্ছে নেট দুনিয়া।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here