নিউজ ডেস্ক- ভাই ফোঁটার সব প্রস্তুতি ছিল।কিন্তু ভাইকে ফোঁটা আর দেওয়া হল না। পরিবর্তে ভাইফোঁটার আগের দিনই খবর এল পুকুর থেকে উদ্ধার হয়েছে বোনের মৃতদেহ।শরীরে রয়েছে অনেক আঘাতের চিহ্ন। এই ঘটনায় শোকের ছায়া আনন্দপুরে পায়েলের বাড়িতে। সোমবার নরেন্দ্রপুরের চাঁদপুরে একটি পুকুর থেকে উদ্ধার হয় গৃহবধূ পায়েলের মৃতদেহ।


বছর সাতেক আগে আনন্দপুরের বাসিন্দা পায়েলের বিয়ে হয় চাঁদপুরের প্রদীপ শিকারী নামে এক ইলেকট্রিক মিস্ত্রির সঙ্গে। কিন্তু বিয়ের পরই পায়েল জানতে পারে এর আগেও একটি বিয়ে করেছিল প্রদীপ।তাদের ৫ বছরের একটি ছেলে ও ৩ বছরের একটি মেয়ে রয়েছে। তবুও সেই বিয়ে মেনে নিয়েই সংসার করছিল পায়েল।


পায়েলের পরিবারের অভিযোগ, বিয়ের পর থেকেই পায়েলের ওপরে অত্যাচার শুরু করেছিল প্রদীপ। এছাড়া প্রদীপের আগের পক্ষের বৌ টুম্পা ও তার ছেলেরা পায়েলের ওপরে অত্যাচার করত। তারাই তাকে মেরে পুকুরে ফেলে দিয়েছে। পায়েলের শরীরে একাধিক আঘাতের চিহ্নও রয়েছে।
ওই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত ৭ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হয়েছে থানায়। মূল অভিযুক্ত প্রদীপ শিকারী ও তার মাকে গ্রেফতার করেছে পুলিস। আজ তাদের বারুইপুর আদালতে তোলা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here