নিউজ ডেস্ক – মৃত বলে হাসপাতাল থেকে ফেরানো হল বৃদ্ধাকে। অথচ বাড়ি ফিরে দেখা গেল শ্বাস চলছে। বেঁচে আছেন বৃদ্ধা।এরপরই ফের বোলপুর মহকুমা হাসপাতালে তাঁকে নিয়ে আসা হয়৷ যদিও পরে মৃত্যু হয় আনন্দময়ী দাস (৭৮) নামে ওই বৃদ্ধার। ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যপক উত্তেজনার সৃষ্টি হয় হাসপাতাল চত্বরে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে শান্তিনিকেতন থানার পুলিশ।


বোলপুরের ২ নম্বর ওয়ার্ডের কুমোর পুকুর পাড়ের বাসিন্দা আনন্দময়ী দাস। বার্ধক্যজনিত কারনে এদিন তাঁকে বোলপুর মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। অভিযোগ, হাসপাতালের চিকিৎসক পঙ্কজ বিশ্বাস বৃদ্ধাকে মৃত বলে পরিবারের লোকজনকে জানিয়ে দেন। যদিও, বৃদ্ধাকে ভরতি নেওয়া হয়নি। তাই ময়নাতদন্ত না করিয়েই দেহ বাড়ি নিয়ে যান পরিজনরা। মৃতার ছেলে নিতাই দাস জানান, বাড়ি ফিরে দেখা যায় তাঁর মা’র শ্বাস চলছে। জলও খান। তড়িঘড়ি ফের হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। পরে দেখা যায় বৃদ্ধার মৃত্যু হয়েছে।
এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে মৃতার পরিবারের লোকজন ব্যপক বিক্ষোভ দেখায় হাসপাতাল চত্বরে। খবর পেয়ে শান্তিনিকেতন থানার পুলিশ আসে ঘটনাস্থলে। মৃতের পরিবারের আরও অভিযোগ, প্রথমবার হাসপাতালে নিয়ে আসার পর চিকিৎসা করলেই প্রাণে বেঁচে যেতেন বৃদ্ধা। চিকিৎসক পঙ্কজ বিশ্বাস বলেন, ‘নার্ভ পাচ্ছিলাম না, আমার সিনিয়ররাও নার্ভ পাচ্ছিলেন না বৃদ্ধার। সেটাই রোগীর আত্মীয়দের জানিয়ে দিই। ওরা দেহ নিয়ে চলে যায়। পরে আবার এসে বলছে বাড়িতে জল খেয়েছে। তখন আবার দেখলাম, কিন্তু রোগীর তখন মৃত্যু হয়েছে।’এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here