নিউজ ডেস্ক- মুম্বই হামলার পরে বায়ুসেনা চাইলেও পাকিস্তানের জঙ্গি ঘাঁটি ধ্বংস করার অনুমতি দেয় নি ইউপিএ সরকার। ২০০৮ সালে ২৬/১১ মুম্বই হামলার পরেই ভারতীয় বায়ুসেনা পাকিস্তানের জঙ্গি ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দেওয়ার আবেদন জানিয়ে সরকারের দ্বারস্থ হয়েছিল। তবে তৎকালীন ইউপিএ সরকার সেই আবেদন খারিজ করে দেয় বলে জানালেন প্রাক্তন বায়ুসেনা প্রধান বিএস ধানোয়া। একটি কলেজে ছাত্রদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখার সময় এই কথা বলেন তিনি।

ধানোয়ার বক্তব্য , ‘এটি সম্পূর্ণ ভাবে একটি রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত ছিল।’
ধানোয়ার এই মন্তব্যের প্রক্ষিতে তাঁকে প্রশ্ন করা হলে সংবাদ সংস্থা এএনআইকে তিনি বলেন, ‘আমি এই বিষয়টি আগেও বলেছিলাম। ২০০১ সালে জম্মু ও কাশ্মীর বিধানসভা হামলার পর থেকেই আমরা পাকিস্তানে থাকা জঙ্গি ঘাঁটিতে হামলা চালানোর জন্য প্রস্তুত ছিলাম। আমরা সংসদ হামলার পরও পাকিস্তানে থাকা জঙ্গি ঘাঁটিতে হামলা চালানোর অনুমতি চেয়েছিলাম। মুম্বই হামলার পরও আমরা সেই অনুমোদন চাই। তবে সরকার দুবারই তা নাকচ করে দিয়েছিল।’


প্রাক্তন বায়ুসেনা প্রধান আরও বলেন, ‘মুম্বই হামলার পর তৎকালীন বায়ুসেনা প্রধান সরকারকে জানিয়েছিল যে আমরা পাকিস্তানে অবস্থিত জঙ্গি ঘাঁটিতে হামলা চালাতে প্রস্তুত। সেবারে আমি নিজে পাক অধিকৃত কাশ্মীরে থাকা জঙ্গি ঘাঁটিগুলি শনাক্ত করেছিলাম। ভারতীয় বায়ুসেনার এই পরিকল্পনা সব সময়ই তৈরি ছিল।’
সরাসরি কাউকে দোষারোপ না করেই ধানোয়া বলেন, ‘অবশ্য আমি বলতে পারি না যে সরকারের ইচ্ছা শক্তি ছিল না। তবে এটা সত্যি যে এটা একটা রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত। আমরা বায়ুসেনার তরফে সবসময় এটাই মাথায় রেখেছি যে আমরা এই হামলা চালানোর জন্য প্রস্তুত আছি কি না। ২০০৮ সালে ভারতীয় বায়ুসেনার জন্য এই হামলা চালানো আরও সহজ ছিল কারণ পাকিস্তানের কাছে তখনও দূরদৃষ্টি সম্পন্ন যুদ্ধবিমান ছিল না। তবে শেষ পর্যন্ত জাতীয় স্তরের নেতাদের এই বিষয়গুলির সিদ্ধান্ত নিতে হবে। পরবর্তীতে বালাকোট অভিযানের সময় কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব সেই সিদ্ধান্তটা নিতে পেরেছিল বলে সেই অভিযান চালাতে বায়ুসেনা সক্ষম হয়েছিল।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here