পান্না সেখ, মালদা- বন্দুক ঠেকিয়ে এক যুবককে অপহরণ করতে গিয়ে গ্রামবাসীদের তাড়া খেয়ে ধরা পড়ল তিন অপহরণকারী। বৃহস্পতিবার রাতে চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে রতুয়া থানার চাঁদমণি গ্রামে। এমনকী, ক্ষিপ্ত গ্রামবাসীরা ওই তিন অপহরণকারীকে ব্যাপক গণপিটুনি দেয় বলে অভিযোগ। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় রতুয়া থানার পুলিশ। অভিযোগের ভিত্তিতে ওই তিন অপহরণকারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

উদ্ধার হয়েছে আগ্নেয়াস্ত্র,কার্তুজ, এসইউভি গাড়ি।
ঘটনায় চাঞ্চল্য রতুয়া-১ ব্লকের চাঁদমণি-২ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায়।ধৃত ওই তিন দুষ্কৃতীকে চাচল মহকুমা আদালতে পেশ করে রতুয়া থানার পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে ধৃত তিন দুষ্কৃতীর নাম মোহাম্মদ আরজাউল হক (৪৮) মোহাম্মদ ফারিদুল হক (৩৮) অপর আরেকজনের নাম মোহাম্মদ ইব্রাহিম (২৮) এদের প্রত্যেকের বাড়ি কালিয়াচক থানা এলাকায়। ধৃতদের কাছ থেকে একটি পাইপগান ও দুটি বুলেট সহ একটি এস ইউ ভি গাড়ি উদ্ধার করা হয়েছে।ধৃতদের শুক্রবার চাঁচল মহকুমা আদালতে পেশ করা হয়েছে। এদের মধ্যে অভিযুক্ত মোহাম্মদ ইব্রাহিমকে ১০ দিনের পুলিশ হেফাজতে চেয়ে চাচল আদালতে পেশ করা হয়। পুলিশ জানিয়েছে এদের বিরুদ্ধে পুলিশের খাতায় একাধিক মামলা রয়েছে।

জানা গিয়েছে রতুয়া-১ ব্লকের চাঁদপুর-২ গ্রাম পঞ্চায়েতের বিকলপুর গ্রামের যুবক মোহাম্মদ মনিরুল হক বৃহস্পতিবার রাতে বিকলপুর স্ট্যান্ড থেকে বাড়ি ফিরছিল সেসময় একটি চারচাকা গাড়িতে জনাকয়েক দুষ্কৃতী তার পথ আটকায় এবং তাকে জোর করে গাড়িতে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে, তখন ওই যুবক মোহাম্মদ মনিরুল হক চিৎকার চেচামেচি শুরু করে, চিৎকার চেঁচামেচি শুনে স্থানীয়রা ছুটে এসে ওই যুবককে উদ্ধার করে।এবং অভিযুক্ত ওই তিন দুষ্কৃতীকে হাতেনাতে ধরে ফেলে, তাদের সাথে থাকা আরো দুই দুষ্কৃতী রাতের অন্ধকারে সুযোগে সেখান থেকে পালিয়ে যায়।এই ঘটনায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায় চাঁদমনি এলাকায়। ঘটনার খবর দেয়া হয় রতুয়া থানায়, রতুয়া থানার পুলিশ তৎপরতা সাথে ঘটনাস্থলে ছুটে যায়, এবং অভিযুক্ত ওই তিন দুষ্কৃতীকে গ্রেফতার করে। পুলিশ তাদের কাছ থেকে একটি পাইপগান দুটি বুলেট ও একটি এস ইউ ভি গাড়ি বাজেয়াপ্ত করে।শুক্রবার অভিযুক্তদের চলাচল মহকুমা আদালতে পেশ করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here