নিউজ ডেস্ক- রাজ্যেও দ্রুত হারে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। মঙ্গলবার রাত পর্যন্ত করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৩২ জন। বুধবার বেলা গড়াতেই সেই সংখ্যা গিয়ে দাঁড়াল ৩৭-এ ৷ বাড়ছে মৃত্যুও ৷ রাজ্যে বুধবার দুপুর পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ৬ ৷ যদিও মুখ্যমন্ত্রীর পরিসংখ্যান অনুযায়ী, করোনায় এ রাজ্যের এখনও পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা তিনেই আটকে। আজ নবান্নে চিকিৎসকদের সঙ্গে নিয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানেই তিনি হিসেব দিয়ে বললেন, “আজ বিকেল পর্যন্ত রাজ্যে ৩৭ জনের করোনা পজিটিভ ধরা পড়েছে। তার মধ্যে ৩ জন সুস্থ হয়ে ফিরে গিয়েছেন, ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। তাই এই মুহূর্তে পজিটিভ ৩১ জন।” তবে পরিস্থিতি নিয়ে তিনি যে উদবিগ্ন তাও বুঝিয়ে দেন মুখ্যমন্ত্রী। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রীতিমতো হাত জোড় করে জনতার কাছে লকডাউন মানার কাতর আর্জি জানান আজ।

এদিন নবান্নের সাংবাদিক সম্মেলন থেকে তিনি বলেন, ‘আগামী ২ সপ্তাহ রাজ্যের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ ৷এটাই পরীক্ষা দেওয়ার সময় ৷ দয়া করে সরকারের নির্দেশ মানুন ৷ এখন রাস্তায় দাঁড়িয়ে আড্ডা বন্ধ করুন ৷ রাস্তায় ভিড় জমিয়ে গল্প করার বহু সুযোগ পাবেন ৷’ এখানেই শেষ নয়, রাজ্যের মানুষের উদ্দেশে মুখ্যমন্ত্রীর কাতর আর্জি, ‘আপনাদের হাত জোড় করে পায়ে পড়ে বলছি লকডাউন মানুন ৷ সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতেই হবে ৷ নইলে আমরা না হলে স্টেজ থ্রি-তে চলে যাব ৷’


আগামী দু-সপ্তাহেই করোনা যুদ্ধের ভাগ্য নির্ধারণ। রাজ্যবাসীকে আরও বেশি সতর্ক থাকতে আবেদন করলেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর আর্জি, রাস্তায় আড্ডা নয়। লক-ডাউন মানতেই হবে। করোনায় থ্রেজ থ্রি’তে যাওয়া আটকাতেই হবে। আগামী দু-সপ্তাহ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। করোনা সংক্রমণ কোন দিকে গড়াচ্ছে, এই দু-সপ্তাহে সেটাই নির্ধারিত হতে চলেছে।

রাজ্যে মোকাবিলায় ঠিক কোন জায়গায় দাঁড়িয়ে রাজ্য? মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘রাজ্যে ৩১ জন করোনা আক্রান্ত ৷ করোনা থেকে সেরে উঠেছেন ৩ জন ৷ রাজ্যে করোনায় মৃত ৩ ৷’

দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে বাড়ছে। অথচ তারই মধ্যে লকডাউন উপেক্ষা করে রাস্তায় রাস্তায় ভিড় ৷ সাধারণ মানুষের সুবিধার কথা ভেবে লকডাউনেও বেশ কিছু ছাড় দিয়েছে রাজ্য। তারপরও মানুষের সচেতনার অভাব স্পষ্ট। এনিয়ে ক্ষোভ গোপন রাখেননি মুখ্যমন্ত্রী ৷ তিনি বলেন, ‘এত ছাড় তো হল, তারপরও মানছেন না কেন?’
করোনা মোকাবিলায় রাজ্য সবরকম চেষ্টা চালাচ্ছে। তথ্য দিয়ে এদিনের বৈঠকে তা তুলে ধরেন মুখ্যমন্ত্রী । তিনি বলেন, ‘ করোনা মোকাবিলায় ১ লক্ষ ১১ হাজার ৩৯৪ PPE দিয়েছি ৷ ৪২ হাজার ২৯৬ N95 মাস্ক দিয়েছি ৷ ৩ হাজার ২০০ থার্মাল গান দিয়েছি ৷ বাংলা থেকে ৭১ জন নিজামুদ্দিনে যান ৷ তার মধ্যে ৫৪ জনকে কোয়ারান্টিনে পাঠানো হয়েছে ৷’

ছবি – প্রতীকী ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here