নিউজ ডেস্ক- আত্মহত্যার চেষ্টা করা যুবকের মুখে মাস্ক না থাকায় চিকিৎসায় নারাজ চিকিৎসক, মৃত্যু যুবকের, বিক্ষোভ, ভাঙচুর হাসপাতাল। তাতে জখম হন দু’জন। এই ঘটনায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে হাবড়া হাসপাতাল চত্বরে। পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

পুলিশ সূত্রে খবর, অশোকনগর ১ নম্বর ওয়ার্ডের বনবনিয়া এলাকার বাসিন্দা গৌতম দাস নামে এক বছর বিয়াল্লিশের যুবক পেশায় গাড়িচালক। গাড়ির মালিকের সঙ্গে দিন কয়েক ধরে অশান্তি চলছিল তাঁর। শনিবার রাতে তিনি বাড়ি ফিরে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। ব্যাপারটা পরিবারের সদস্যদের নজরে আসায় তাঁরা তড়িঘড়ি উদ্ধার করেন গৌতমকে। এরপর দ্রুত হাবড়া হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু তাঁর মুখে মাস্ক না ছিল না। এই অবস্থায় হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক গৌতমের চিকিৎসা করতে অস্বীকার করেন বলে অভিযোগ।

কিছুক্ষণের মধ্যেই গৌতমের মৃত্যু হয়। এরপর চিকিৎসা না করাতেই তাঁর মৃত্যু হয়েছে, এই অভিযোগ তুলে আত্মীয়রা ভাঙচুর চালান হাসপাতালে। ভেঙে দেওয়া হয় জানলার কাঁচ। উত্তেজিত হয়ে ভাঙচুর করতে গিয়ে আহত হন রোগীর পরিবারেরই দুই সদস্য। তাঁদের আবার চিকিৎসার জন্য বারাসতে পাঠানো হয়। হাবড়া হাসপাতাল ভাঙচুরের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতিত নিয়ন্ত্রণে আনে। কিছুক্ষণের মধ্যেই গৌতমের মৃত্যু হয়। এরপর চিকিৎসা না করাতেই তাঁর মৃত্যু হয়েছে, এই অভিযোগ তুলে আত্মীয়রা ভাঙচুর চালান হাসপাতালে। ভেঙে দেওয়া হয় জানলার কাঁচ। উত্তেজিত হয়ে ভাঙচুর করতে গিয়ে আহত হন রোগীর পরিবারেরই দুই সদস্য। তাঁদের আবার চিকিৎসার জন্য বারাসতে পাঠানো হয়। হাবড়া হাসপাতাল ভাঙচুরের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতিত নিয়ন্ত্রণে আনে। পরিবারের অভিযোগ, সঠিক সময়ে চিকিৎসা পেলে বাঁচানো যেত গৌতমকে। তবে যাঁর বিরুদ্ধে রোগীকে না দেখার অভিযোগ, সেই কর্তব্যরত চিকিৎসক কিন্তু এ বিষয়ে মুখ খুলতে চান নি। কোন প্রতিক্রিয়া মেলেনি তাঁর কাছ থেকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here