মালদা- BengalCorrespondent-এর খবরের জের, বিভ্রান্তিকর চিঠি প্রত্যাহার করে নিলেন মালদার ডিআই। খবর প্রকাশের ২৪ ঘন্টার মধ্যেই তিনি চিঠি প্রত্যাহার করে নেন। শিক্ষকদের বেতন কেটে নেওয়ার বিভ্রান্তিকর নির্দেশিকা জারি করে তিনি আবার চিঠি দিয়েই সেই নির্দেশিকা প্রত্যাহার করে নেন।


উল্লেখ্য, আকস্মিকভাবে, মালদা জেলার ডিআই একটি নির্দেশিকা জারি করেন, শিক্ষকদের কথানুযায়ী সেই নির্দেশিকায় ট্রেন্ড প্রাথমিক শিক্ষকদের একটা বড় অংশের মোটা অঙ্কের বেতন প্রতিমাসে কেটে নেওয়া হবে। তাঁদের A ক্যাটাগরি পে স্কেল থেকে বঞ্চিত করা হবে। বিএড এবং তারসাথে PDPET ব্রিজ কোর্স যারা করেছেন তাঁদের ক্ষেত্রেই এই নিয়ম প্রযোজ্য। এই নির্দেশিকার পরেই উত্তাল হয়ে শিক্ষক মহল।বহু শিক্ষক ফোন করে অভিযোগ জানান দিদিকে বলোতে।সেখান থেকেও বিষয়টির তদন্ত হবে বলে আশ্বাস দেওয়া হয়।এরইমধ্যে কয়েকদফায় বিভিন্ন রাজনৈতিক শিক্ষক সংগঠন ক্ষোভ দেখায়। অরাজনৈতিক সংগঠন উস্থি গতকাল বিক্ষোভ দেখিয়ে ডেপুটেশন দেয়। যথেষ্ট তথ্য প্রমাণ সহ ডিআই সুনীতি সাঁপুই এর কাছে আমাদের সাংবাদিকরা বিষয়টি জানতে চাইলে স্পষ্ট উত্তর দিতে পারেন নি ডিআই। ক্যামেরার সামনে থেকে চলে যান।


এই খবরের পরেই নড়েচড়ে বসে রাজ্য সরকার। শিক্ষামন্ত্রক খোঁজ খবর শুরু করে। রাজ্য শিক্ষা দফতরের বহু আধিকারিক, উচ্চপদস্থ কর্তা নিজেরাও হতবাক হয়ে যান এমন নির্দেশিকা দেখে। এমনকি তদন্তের সিদ্ধান্ত নিতে যায় রাজ্য। এরপরেই আজ খবর প্রকাশের ২৪ ঘন্টার মধ্যেই নতুন করে চিঠি দিয়ে ডিআই জানিয়ে দেন, আগের নির্দেশিকা প্রত্যাহারের কথা। জানানো হয়েছে, সকলেরই যেমন বেতন হওয়ার কথা তেমনই হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here