নিউজ ডেস্ক- রবিবার সংসদের উচ্চকক্ষে নয়া কৃষি বিল পেশের সময় বিতর্কের জেরে কংগ্রেস সাংসদ রিপুন বোরা, তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন, আপ সাংসদ সঞ্জয় সিং ও ডিএমকে সাংসদ ত্রিরুচি শিবা হরিবংশের পোডিয়ামের মাইক কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন বলে অভিযোগ। এমনকী, তাঁরা রুলবুক, কাগজপত্রও ছিঁড়ে দেন বলে অভিযোগ।

যদিও বিরোধীদের দাবি, রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারম্যানকে রুল বুক দেখানোর চেষ্টা করেছিলেন ডেরেক। তাঁকে সরিয়ে দেন রাজ্যসভার মার্শাল। সেসময় ১০ মিনিটের জন্য অধিবেশন মুলতুবি করে দেওয়া হয়। পরে অধিবেশন শুরু হলে ধ্বনি ভোটে বিল পাশ হয়ে যায়। এরপর কংগ্রেস, তৃণমূল, বাম ও ডিএমকে সাংসদরা রাজ্যসভার কক্ষে ধরনায় বসেন। ডেপুটি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনেন সাংসদরা। তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও’ ব্রায়েনের যদিও দাবি, তিনি রুল বুক ছেঁড়ার মতো কাজ করেননি। তাঁর বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ আনা হয়েছে।এরপর আজ দিনের শুরুতেই ডেরেক, রিপুন বোরা-সহ রাজ্যসভার ৮ সাংসদকে সাসপেন্ড করা হয়। অধিবেশনের শুরুতেই ডেপুটি চেয়ারম্যানের সঙ্গে সাংসদদের ‘অভব্যতা’র বিষয়টি তুলে চেয়ারম্যান বেঙ্কাইয়া নায়ডু সাফ জানান, সাংসদের এমন ব্যবহার মেনে নেওয়া যায় না। তাঁদের আত্মসমীক্ষা করা উচিত। এক সপ্তাহের জন্য সাসপেন্ড করা হয়েছে ওই ৮ সাংসদকে।

এরপরই এ নিয়ে কড়া প্রতিক্রিয়া দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। টুইটারে তিনি লিখেছেন, ”এই ঘটনা খুবই অনভিপ্রেত। তবে আমরা মাথা নত করব না। কেন্দ্রের স্বৈরাচারিতার বিরুদ্ধে সংসদে এবং প্রয়োজনে পথে নেমে লড়ব।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here